Bkash Merchant Account 2024

Bkash Merchant কি? Bkash Merchant একাউন্ট কিভাবে তৈরি করতে হয়? মার্চেন্ট একাউন্ট এর সুবিধা কি? বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট তৈরির শর্তগুলো কি কি? আজকে এসব কিছু নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। বিকাশ মার্চেন্ট রির্পোটিং পোর্টাল মূলত সকল ধরণের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান বা সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের জন্য। একটি বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট থেকে অনেক ধরণের সুবিধা পাবেন।

বিকাশ ক্যাশআউট চার্জ, বিকাশ সেন্ড মানি

আপনার যখন কোনো একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান থাকে, গ্রাহকসেবার বিষয়টি আপনার মাথায় থাকতে হবে। ব্যবসায়িকদের বিভিন্ন সুবিধা দিতেই বিকাশ নিয়ে এসেছে মার্চেন্ট একাউন্ট। একজন ব্যবসায়িক হিসেবে কিভাবে বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট তৈরি করবেন? এবং একাউন্ট এর রিপোটিং পোর্টাল করবেন তা নিয়ে থাকছে বিস্তারিত আলোচনা।

আমি কনফিডেন্টলি বলতে পারি যে, আপনি যদি আমাদের আজকের আর্টিকেলটি পড়েন, তাহলে বিকাশ এর মার্চেন্ট একাউন্ট সর্ম্পকে স্বচ্ছ ধারণা হয়ে যাবে।

Bkash Merchant এর ধারণা:

বিকাশের সাধারণ গ্রাহক একাউন্ট এর মতো নয় মার্চেন্ট একাউন্ট। Bkash Merchant হলো মূলত ব্যবসায়িকদের জন্য বিশেষ একাউন্ট। এই মার্চেন্ট একাউন্ট শুধু ব্যবসায়িকরাই খুলতে পারবেন। এবং তা পরিচালনা করতে পারবেন। বর্তমান সময় ডিজিাটাল সময়। স্মার্ট হওয়ার সময়। তাই সকল ব্যবসায়িকদের ডিজিটাল লেনদেন এর জন্য বিকাশ চালু করেছে বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট।

বিকাশ লাইভ চ্যাট সব সম্স্যার সমাধান

এই স্মার্ট যুগের এক যুগান্তরকারি পদক্ষেপ হলো Bkash Merchant একাউন্ট। অনলাইনে ডিজিটালি লেনদেনের জন্য বিকাশ এর যেকোনো পার্সোনাল একাউন্ট থেকে শপিং এর পেমেন্ট এর জন্য টাকা পাঠানো যাবে বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্টে।

আমারা সবাই এই বিষয়ে অবগত আছি যে, এখন শপিং করার জন্য ক্যাশ টাকা সাথে নিয়ে মার্কেটে যাওয়া প্রয়োজন নেই। আপনার সাথে যদি থাকে এটিএম কার্ড, ডেভিড কার্ড, ক্রেডিট কার্ড তাহলে মার্কেটে গিয়ে শপিং কর এসব কার্ড পাঞ্চ করলেই পেমেন্ট পরিশোধ হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে গ্রাহক এর কাছে থাকে কার্ড আর ব্যবসায়িকদের কাছে থাকে পাঞ্চ কার্ড। কিন্ত সকল গ্রাহকের কাছে এসব ব্যাংকের ডেভিড কার্ড বা ক্রেডিট কার্ড থাকেনা। কিন্তু প্রায় সকল গ্রাহকেই আছে বিকাশের মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট। তাই তারা কিন্তু এসব পাঞ্চ মেশিনের মাধ্যমে পেমেন্ট করতে পারেনা। তাই তাদের অসুবিধা দূর করার জন্য বিকাশ নিয়ে এসেছে বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট।

অনলাইন ইনকাম বিডি পেমেন্ট বিকাশ

যেসব ব্যবসায়িকদের Bkash Merchantএকাউন্ট থাকবে, তারা গ্রাহকের মোবাইল ব্যাংকিং এর থেকে পেমেন্ট গ্রহণ করতে পারবে। এক্ষেত্রে আর গ্রাহকের কোনো প্রকার কার্ডের দরকার হবেনা।

ব্যবসায়িক Bkash Merchant কি:

ব্যবসায়ীরা বিকাশ পার্সোনাল একাউন্ট ব্যবহার করতে পারেন। তবে তাতে কিন্তু তাদের খরচ বেশি হয়। অর্থাৎ সেই টাকা উত্তোলনের জন্য সার্ভিস চার্জ দিত হয়। আবার গ্রাহকের লস হয়। কারণ তাকে পার্সোনাল একাউন্ট থেকে সেন্ড মানি করতে হয়। তাতে তারও চার্জ প্রযোজ্য হয়। ফলে গ্রাহকও ক্ষতির সম্মুখীন হোন।

তাই গ্রাহক এবং ব্যবসায়িকদের কথা বিবেচনা করে বিকাশ নিয়ে এসেছে Bkash Merchant। বিকাশের এই মার্চেন্ট একাউন্ট এর মাধ্যমে শপিং এর লেনদেন করলে উভয়েই লাভ হবে। কারণ কাউকেই অতিরিক্ত চার্জ দিতে হবেনা।

তাই আমি বলবো, যেসব ব্যবসায়িকদের বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট আছে, সেসব একাউন্টের মাধ্যমে কেনাকাটার পেমেন্ট করুন।

Bkash Merchant রিপোর্টিং পোর্টাল থেকে সেসকল সুবিধা পাবেন:

শপিং এর পেমেন্ট গেটওয়ে সহজ হয়ে যায়।

QR Code Scone করে শপিং এর লেনদেন করতে পারবেন।

Cashless লেনদেন করতে পারবেন। তাই ঝামেলামুক্ত শপিং হবে।

কেনাকাটায় খুরচা টাকা নিয়ে ঝামেলায় পড়তে হবেনা। কারণ শপিং হবে ক্যাশলেস।

যতোবেশি বেচাকেনা হোক, কোনো সমস্যা হবেনা। কারণ ফিজিক্যালি টাকা লেনদেন করতে হবেনা।

কাস্টমার এবং ব্যবসায়িকদ উভয়ের খরচ বাঁচবে। এবং সময় কম লাগবে।

একজন মার্চেন্ট একাউন্ট হোল্ডার যেকোনো বিকাশ এজেন্ট এর কাছে থেকে টাকা উত্তোলন করতে পারবেন।

আর এই টাকা উত্তোলনে কোনো প্রকার চার্জ দিতে হবেনা। তাই ব্যবসায়িকরা অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হয়ে থাকেন।

Bkash Merchant রিপোর্টিং পোর্টাল:

বিকাশ মার্চেন্ট রিপোর্টিং পোর্টাল হলো মূলত একটি অনলাইন ভিত্তিক ডিজিটাল স্টেটমেন্ট। যার মাধ্যমে একজন বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট হোল্ডার তার একাউন্ট এর রিপোর্ট, স্টেটমেন্ট চেক করতে পারেন।

বেস্ট বাংলাদেশী ইনকাম সাইট

কিভাবে রিপোর্ট বা স্টেটমেন্ট চেক করতে হয়:

একজন বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট হোল্ডারকে তার একাউন্ট এর নিয়মিত আপডেট রাখতে হয়। কারণ মার্চেন্ট একাউন্ট করেন শুধু ব্যবসায়িকরা। আর একজন ব্যবসায়িককে তার মার্চেন্ট একাউন্টের রিপোর্ট বা স্টেটমেন্ট চেক করতে পারা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিভাবে চেক করতে পারবেন। বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট এর রিপোর্ট বা স্টেটমেন্ট চেক করার জন্য বিকাশ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ইউজারনেম এবং একটি স্ট্রং পার্সওয়ার্ড সংগ্রহ করতে হবে। আর পার্সওয়ার্ড অবশ্যই আপনি পরিবর্তন করে নিবেন। এবং একটি স্ট্রং পার্সওয়ার্ড ব্যবহার করবেন।

Bkash Merchant একাউন্ট এর রিপোর্ট চেক করতে এই লিঙ্ক এ ভিজিট করুন। এখানে ক্লিক করলে আপনি একটি অপশন দেখতে পাবেন। এখানে আপনার ইউজারনেম দিবেন। এবং পার্সওয়ার্ড দিয়ে আপনার বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট এর রিপোর্ট বা স্টেটমেন্ট চেক করতে পারবেন।

তাছাড়া একজন বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট ব্যবহারকী তার মোবাইলে একটি বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট এর অ্যাপস ব্যবহার করে সব সময় আপডেট রিপোর্ট এবং স্টেটমেন্ট দেখতে পারবেন।

Bkash Merchant
Bkash Merchant

এবার একটি বিকাশ মার্চেন্ট অ্যাপ ডাউনলোড করুন আপনার মার্চেন্ট একাউন্ট এর জন। তাহলে এই অ্যাপ ব্যবহার করে যখন খুশি তখন একাউন্ট এর লেনদেনের সকল রিপোর্ট দেখতে পারবেন।

বিকাশ মার্চেন্ট অ্যাপস ডাউনলোড করুন:

আপনি যদি বিকাশ মার্চেন্ট অ্যাপস ব্যবহারকারী হয়ে থাকেন। তাহলে অবশ্যই বিকাশ অ্যাপসটি ডাউনলোড করুন। কারণ বিকাশ মার্চেন্ট অ্যাপে অনেক আর্কষণীয় সুযোগ-সুবিধা উপভোগ করতে পনারবেন। তাছাড়া প্রায় সাড়াবছরই কোনো না কোনো অফার থাকেই। এসব অফার গ্রহণ করতে পারবেন।

বিকাশ মার্চেন্ট অ্যাপটি ডাউনলোড করার জন্য গুগল প্লে স্টোরে যান। তারপর অ্যাপটি ডাউনলোড করুন। গুগল প্লে স্টোরে অ্যাপটি আছে। আর আপনাদের সুবিধার জন্য বিকাশ মার্চেন্ট অ্যাপটির লিঙ্ক দেওয়া হলো।

 আপনি বিকাশ অ্যাপ ব্যবহারের পাশাপাশি সরাসরি বিকাশ এর ওয়েবসাইট ভিজিট করে আপনার একাউন্ট এর রিপোর্ট দেখতে পারবেন। রিপোর্ট দেখার জন্য বিকাশের অফিশিয়াল ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

Bkash Merchant একাউন্ট কিভাবে খুলবেন:

বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট খুলার জন্য আপনার কিছু পূরণ করতে হবে। সকল সাধারণ জনগণকে বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট খুলতে দেওয়া হবেনা। একাউন্ট খোলার জন্য আপনার একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থাকতে হবে। এই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ট্রেড লাইসেন্স থাকতে হবে। ট্রেড লাইসেন্স থাকা বার্ধতামূলক। তারপর আপনার একটি এনআইডি কার্ড থাকতে হবে। একটি পার্সপোর্ট সাইজ ছবি থাকতে হবে। আপনার জেলা উল্লেখ করতে হবে। আপনার দোকানের নাম উল্লেখ করতে হবে। তাছাড়া আপনার দোকানের লোকেশন উল্লেখ করতে হবে। আপনি কার সাথে যোগাযোগ করতে চান, তার নাম লিখতে হবে। আপনার ইমেইল থাকলে, ইমেইল আইডি দিতে হবে। এসব তথ্য দেওয়ার পর I am not a Robot এ টিক দিয়ে তথ্য সাবমিট দিতে হবে।

Bkash Merchant একাউন্ট খোলার জন্য এসব রেডি রাখবেন। বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট তৈরি করার জন্য বিকাশ প্রতিনিধিরা বিভিন্ন ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান ভিজিট করেন। আশাকরি আপনার প্রতিষ্ঠানেও যাবে। তাবে আপনার যদি তারা থাকে তাহলে তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। তাহলে দ্রূতই আপনার বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট রেডি হয়ে যাবে।

আর বিকাশ একাউন্ট খোলার জন্য কোনো ধরণের পেমেন্ট করতে হবেনা। বরং একাউন্ট খোলার জন্য আপনি কিছু বোনাস অফার পাবেন।

 উপসংহার:

পরিশেষে বলতে পারি যে, আপনি যদি একজন ব্যবসায়িক মানুষ হোন, তাহলে আপনার একটি Bkash Merchant থাকা উচিৎ। তাই আর দেরি না করে, এখনই বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট খুলন। বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট এর সকল সুয়োগ-সুবিধা উপভোগ করুন। এমন সব গুরুত্বপূর্ণ আর্টিকেল পড়তে আমাদের সাইট ভিজিট করুন। আমরা নিয়মিত গুরুত্বপূর্ণ আর্টিকেল পাবলিশ করি সাইটে, ধন্যবাদ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top